জকিগঞ্জে শাইখে বারকুটি ও প্রিন্সিপাল হাবীব স্মরণে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত: ৮:৫৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৭, ২০১৮

সিলেট অফিস:
আযাদ দ্বীনি এদারায়ে তা’লিম বাংলাদেশ কওমী মাদরাসা শিক্ষা বোর্ডের সাবেক সভাপতি শাইখুল হাদীস আল্লামা হোসাইন আহমদ বারকুটি রহ. ও বাংলার সিংহপুরুষ, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের আমির, জামেয়া মাদানিয়া ইসলামিয়া কাজিরবাজার সিলেট এর প্রিন্সিপাল মাও লানা হাবিবুর রাহমান রহ. স্মরণে যুবজমিয়ত বাংলাদেশ জকিগঞ্জ উপজেলা শাখার উদ্যোগে “আলোচনা সভা ও দোআ মাহফিল” ২৭অক্টোবর ‘১৮ঈ. শনিবার বিকাল ৩ঘটিকার সময় কালিগঞ্জ বাজারে অনুষ্ঠিত হয়। জমিয়তের উপদেষ্টা মুনশীবাজার মাদরাসার শাইখুল হাদীস আল্লামা মুক্বাদ্দাস আলী দা.বা. এর সভাপতিত্বে ও মাওলানা জুনাঈদ আল জাহিদ এর পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সহ-সভাপতি, আগামী একাদশ জাতীয় নির্বাচনে সিলেট ৫ জকিগঞ্জ-কানাইঘাটের সম্ভাব্য এমপি পদপ্রার্থী শাইখুল হাদীস মাওলানা উবায়দুল্লাহ ফারুক। প্রধান অতিথির বক্তব্যে উবায়দুল্লাহ ফারুক বলেন পাকিস্থান আমলে এক কুখ্যাত নাস্তিকের বিরুদ্ধে আন্দোলন করেছিলাম, আমি তখন বৃহত্তর জৈন্তার নেতৃত্বে ছিলাম, প্রিন্সিপাল রহ. গোলাপগঞ্জের নেতৃত্বে ছিলেন এবং পুরো সিলেটের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন আল্লামা বারকুটি রহ.। প্রিন্সিপাল রহ. ছাত্র যামানা থেকে আন্দোলন-সংগ্রামে ছিলেন। আমি উভয়ের মাগফিরাত কামরা করি।
বিশেষ অতিথির বক্তব্যে মাওলানা মুফতি আবুল হাসান বলেন, শাইখে বারকুটি রহ. এর ইন্তেকালের সময় হজ্বের সফরে ছিলাম বিধায় হযরতের জানাযায় শরীক হতে পারিনি। কিন্তু যখন শুনেছি কালিগঞ্জে হযরতের স্মরণসভা তখন অনেক কাজকে পিছনে ফেলে চলে আসছি সকলের সাথে শরীক হতে। বারকুটি রহ. এদ্বারার দায়ীত্ব গ্রহণের পূর্বে ইছামতি কামিল মাদরাসায় অত্যন্ত স্বনামের সাথে শিক্ষকতা করে জকিগঞ্জবাসীর হৃদয়ে স্থান করে নিয়েছেন। প্রিন্সিপাল রহ. এর কথা স্মরণ করে তিনি বলেন সদ্যপ্রয়াত প্রিন্সিপাল হাবিবুর রহমান রহ. ছিলেন অন্যায়ের বিপক্ষে-ন্যায়ার পক্ষে বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর, এবং দ্বীনের এক অতন্দ্র প্রহরী। সিলেট সহ বাংলাদেশের যে কোন প্রান্তে যখন কোন বাতিল মাথা চাড়া দিয়ে উঠতো তখন সিলেট থেকে তিনিই সর্বপ্রথম সিংহের মত গর্জে ওঠতেন। উনার জীবনের সবকটি আন্দোলনে তিনি বীরত্বের সাথে জয়লাভ করেছেন। এমনকি প্রিন্সিপাল রহ. এর হুংকারে এদেশ থেকে তাসলিমা নাসরিনের মত কুখ্যাত নাস্তিকও স্বদেশ ছাড়কে বাধ্য হয়েছিল। মুফতি আবুল হাসান তাসলিমা নাসরিনকে হুশিয়ারি করে বলেন “হে তাসলিমা নাসরিন তুমি জেনে রেখো প্রিন্সিপাল রহ. যদিও এইপৃথিবীতে নেই কিন্তু তাঁর উত্তরসূরীরা এখনো বেঁচে আছে। তাঁর উত্তরসূরীরা যতদিন পর্যন্ত এপৃথীবিতে বেঁচে থাকবে ততদিন পর্যন্ত তোমার মত নাস্তিক মুরতাদরা মাথা উচুঁ করে দাঁড়াতে পারবে না”। তিনি প্রিন্সিপাল রহ. সম্বন্ধে আরো বলেন আল্লামা হাবিবুর রাহমান রহ. মৃত্যুর পূর্বে উচ্চস্বরে স্পষ্টভাষায় যে সালাম দিয়েছেন আমাদের বিশ্বাস তিনি নবী কারীম সা. কে দেখে সালাম করেছেন। আমি উভয়ের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামরা করি।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন: সিলেট জেলা জমিয়তের যুগ্ম সম্পাদক মাওলানা আব্দুল মালিক ক্বাসিমি,মাওলানা শায়েখ আব্দুল জব্বার- সাহেবজাদায়ে মামরখানি রহ., জকিগঞ্জ উপজেলা জমিয়তের সাংগঠনিক সম্পাদক মাওলানা ফরুক আহমদ, সিলেট জেলা যুবজমিয়তের সাধারণ সম্পাদক যুবনেতা মাওলানা রায়হান উদ্দিন, শাইখে বারকুটি রহ. এর সাহেবজাদা মাওলানা জাবির আহমদ জুলফিকার, সিলেটস্থ দারুল আযহার মাদরাসার প্রতিষ্ঠাতা প্রিন্সিপাল মাওলানা মনজুরে মাওলা।
অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন: মুনশীবাজার মাদরাসার শিক্ষাসচিব ও মুহাদ্দিস মাওলানা ইউনুস খাদিমানি, ইনামতি মাদরাসার নির্বাহী মুহতামিম মাওলানা আব্দুল মুমিন, কালিগঞ্জ জামেয়ার মুহতামিম মাওলানা বাহারুদ্দিন, বারঠাকুরী মাদরাসার শিক্ষক মাওলানা হেলাল আহমদ, জকিগঞ্জ উপজেলা জমিয়তের সহ-সাধারণ সম্পাদক মাওলানা জামিল আহমদ, প্রচার সম্পাদক মাওলানা নাজমুল হুসাইন, অর্থ সম্পাদক মাওলানা শাব্বীর আহমদ, জকিগঞ্জ উপজেলা ছাত্রজমিয়তের সভাপতি মাওলানা ফয়সল আহমদ, সেক্রেটারি সাদিকুর রহমান প্রমূখ।