নৌকা প্রতীকে ১১, ধানের শীষে নির্বাচন করবে ৮ দল

প্রকাশিত: ১১:১২ পূর্বাহ্ণ, নভেম্বর ১২, ২০১৮

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জোটগতভাবে অংশ নেয়ার তথ্য জানিয়েছে বেশ কয়েকটি রাজনৈতিক দল। নির্বাচন কমিশনের কাছে দেয়া চিঠিতে দলগুলো তাদের শরিকদের প্রতীক দেয়ার জন্য অনুরোধ জানিয়েছে। এর মধ্যে বিএনপি শরিক ৮ দল এবং আওয়ামী লীগ ১১ দলের নামের তালিকা ইসির কাছে জমা দিয়েছে। দুই জোটের মধ্যে থাকা বেশ কয়েকটি দল আলাদাভাবে তাদের প্রতীক ব্যবহারের তথ্য জানিয়েছে ইসির কাছে।

গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশে বলা আছে, তফসিল ঘোষণার তিনদিনের মধ্যে রাজনৈতিক দলগুলোকে জোটগতভাবে নির্বাচনের তথ্য জানাতে হবে। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের তফসিল অনুযায়ী গতকাল রোববার ছিল জোটগত নির্বাচনের তথ্য দেয়ার শেষ দিন। নির্বাচন কমিশনে দেয়া চিঠিতে ৮টি দল নিয়ে জোটগত নির্বাচনে অংশগ্রহণের কথা জানিয়েছে বিএনপি। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৮টি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল যৌথভাবে ‘ধানের শীষ’ প্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।

দলগুলো হলো- বিএনপি, লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি), বাংলাদেশ জাতীয় পার্টি (বিজেপি), খেলাফত মজলিস, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি (জাগপা), বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টি, বাংলাদেশ মুসলিম লীগ ও জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ।

চূড়ান্ত মনোনয়ন সময়সীমার মধ্যে সংশ্লিষ্ট নির্বাচনী আসনে যৌথভাবে মনোনীত প্রার্থীকে প্রতীক বরাদ্দের জন্য লিখিতভাবে অবহিত করা হবে বলেও চিঠিতে উল্লেখ করা হয়। অপরদিকে নৌকা প্রতীকে যেসব দল একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোট করবে সেসব দলের তালিকা ইসির কাছে জমা দিয়েছে আওয়ামী লীগ। গতকাল দলটির সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল নির্বাচন কমিশন সচিব হেলালুদ্দিন আহমেদের কাছে এ তালিকা জমা দেন। তবে কোন কোন দল নৌকা প্রতীকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবে তা জানাতে তিনি অস্বীকৃতি জানান। এ বিষয়ে মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল বলেন, নৌকা প্রতীকে কারা ভোট করবে আমরা সে তথ্য কমিশনে দিয়েছি। তবে দলগুলোর নাম বলতে আমি অথরিটি নই। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের একাধিক দল নির্বাচন কমিশনে আলাদা চিঠি দিয়ে নৌকা ও তাদের দলীয় প্রতীকে ভোট করতে কমিশনকে চিঠি দিয়েছে। নিবন্ধনহীন বাংলাদেশ জাসদও নৌকা প্রতীকে ভোট করতে চেয়ে এ ধরনের একটি চিঠি দিয়েছে নির্বাচন কমিশনে। ইসি সূত্রে জানা গেছে, আওয়ামী লীগ, বাংলাদেশের ওয়ার্কাস পার্টি, জাসদ, গণতন্ত্রী পার্টি, সাম্যবাদী দল, জাতীয় পার্টি (জেপি) (মঞ্জু), কমিউনিস্ট কেন্দ্র, গণআজাদী লীগ, ন্যাপ (মোজাফফর), গণতান্ত্রিক মজদুর পার্টি ও বাসদ (রেজা) নৌকা প্রতীক নিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবে।

দুই প্রতীকে নির্বাচন করতে চায় এলডিপি, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ
দলীয় প্রতীকের সঙ্গে বিএনপির ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচন করার কথা জানিয়ে ইসিতে চিঠি দিয়েছে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি) ও কাদের সিদ্দিকীর কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ। গতকাল নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কাছে দল দুটি এ আবেদন জানায়। কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান তালুকদার স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শরিক হিসেবে অংশ নেবে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ। দলীয় প্রতীক গামছা অথবা ঐক্যফ্রন্টের মনোনীত প্রতীক ব্যবহার করা হবে। অপরদিকে এলডিপির প্রেসিডেন্ট ড. অলি আহমদ স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, এলডিপির মনোনীত প্রার্থীদের মধ্যে কেউ কেউ এলডিপির প্রতীক ছাতা মার্কা নিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন করবেন। আবার কয়েকজন প্রার্থী ২০দলীয় জোটের প্রধান শরিক দল বিএনপির প্রতীক ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেছেন।

নৌকা প্রতীকে ভোট করতে চায় জাসদ-তরিকত
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের সঙ্গে নৌকা প্রতীকে ভোট করতে চায় জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) ও বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের (বিটিএফ)। রোববার প্রধান নির্বাচন কমিশনারের (সিইসি) কাছে চিঠি দেয় দল দুটি। জাসদের সভাপতি হাসানুল হক ইনু স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, ‘আপনার সদয় অবগতির জন্য জানাচ্ছি যে, বিগত দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মতোই আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নির্বাচন কমিশন নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলসমূহ নির্বাচনে জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচন করছে। এমতাবস্থায় গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের (আরপিও) ২০-এর ১- এর (এ) ধারা অনুযায়ী ১৪ দলীয় জোটের শরিক দল হিসেবে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) ও ১৪ দলীয় জোট মনোনীত অভিন্ন প্রার্থীদের জন্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত নির্বাচনী প্রতীক ‘নৌকা’ সংরক্ষিত রাখার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে বাধিত করবেন। অপরদিকে বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশনের (বিটিএফ) মহাসচিব সৈয়দ রেজাউল হক চাঁদপুরী স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, তরিকত ফেডারেশনের নির্বাচনী প্রতীক ‘ফুলের মালা’। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের অন্যতম শরিক দল হিসেবে বিগত সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে। সে অনুযায়ী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনেও আমরা ১৪ দলীয় জোটের সঙ্গে জোটগতভাবে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করতে নীতিগতভাবে সম্মত হয়েছি।